১২ই ডিসেম্বর, ২০১৮ ইং | ২৯শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | রাত ৩:৪৫

মেডিকেলে চান্স পেয়েও ভর্তি হতে পারছেন না সামসুল

মেডিকেলে চান্স পেয়েও দারিদ্র্যতার কারণে অর্থের অভাবে ভর্তি হতে পারছেন না কুষ্টিয়ার দৌলতপুরের মেধাবী ছাত্র সামসুল ইসলাম। সে এ বছর মেডিকেলের ভর্তি পরীক্ষায় বরিশাল মেডিকেল কলেজে ভর্তির সুযোগ পেয়েছেন। তার মেধা তালিকা নম্বর ১৭৫১।

 

কিন্তু তাতে বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছে দারিদ্রতা। পরিবারের অভাব ও সকল প্রতিকূলতাকে জয় করে ডাক্তার হওয়ার স্বপ্ন পূরণের প্রথম ধাপে পৌঁছালেও ছেলের ভর্তি নিয়ে শঙ্কায় রয়েছে শামসুল ইসলামের পরিবার।

 

দরিদ্র কৃষক আতিয়ার রহমানের সংসারে নিত্য অভাব অনটনের মধ্যে থেকেও পরিশ্রম ও একাগ্রতায় এ বছর শামসুল মেডিকেল ভর্তি পরী¶ায় বরিশাল মেডিকেল কলেজে চান্স পেয়েছে।

 

তার বাবা কৃষি কাজ করে পরিবারের ভরণপোষণ ও সন্তানদের লেখাপড়ার খরচ চালাতে প্রতিনিয়ত হিমশিম খাচ্ছেন। এরপরও ধার দেনা ও অক্লান্ত পরিশ্রমে ছেলেমেয়েদেরকে পড়াশুনা করাচ্ছেন।

 

জীবন সংগ্রামের টানাপড়েনের মধ্যেও অদম্য মেধাবী ছাত্র ২০১৬ সালে সাগরখালী কলেজ থেকে জিপিএ-৫ পেয়ে উত্তীর্ণ হয়।
মেডিকেলে চান্স পেয়েও ভর্তি হতে পারছেন না সামসুল

মেডিকেলে চান্স পেয়েও দারিদ্র্যতার কারণে অর্থের অভাবে ভর্তি হতে পারছেন না কুষ্টিয়ার দৌলতপুরের মেধাবী ছাত্র সামসুল ইসলাম। সে এ বছর মেডিকেলের ভর্তি পরী¶ায় বরিশাল মেডিকেল কলেজে ভর্তির সুযোগ পেয়েছেন।

 

কিন্তু তাতে বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছে দারিদ্রতা। পরিবারের অভাব ও সকল প্রতিকূলতাকে জয় করে ডাক্তার হওয়ার স্বপ্ন পূরণের প্রথম ধাপে পৌঁছালেও ছেলের ভর্তি নিয়ে শঙ্কায় রয়েছে শামসুল ইসলামের পরিবার।

 

সমাজের বিত্তবানদের কাছে তিনি ছেলের লেখাপড়া চালিয়ে যাওয়ার জন্য সহযোগিতা কামনা করেন।