২১শে নভেম্বর, ২০১৮ ইং | ৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | রাত ১১:৫৫

কুষ্টিয়ার মনোহরদিয়ায় গরীব কৃষকের কলাবাগান বিনষ্ট করেছে দূর্বত্তরা

এ.কে আজাদ সানিঃ পূর্ব শত্রুতার জের ধরে রাতের আধারে গরীব বর্গাচাষীর ১০ কাটা আবাদী কলাবাগান বিনষ্ট করেছে প্রতিবেশি দূর্বত্তরা ৷ ঘটনাটি ঘটেছে কুষ্টিয়া ইবি থানাধীন মনোহরদিয়া ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ড রাধানগর গ্রামে ৷

 

সূত্রে জানা যায়, রাধানগর গ্রামের মৃত কফিলদ্দিনের ছেলে কৃষক শফি উদ্দিন ১০ কাটা জমি বর্গা নিয়ে কলাবাগান চাষ করে সংসার চালিয়ে আসছে ৷ তাকে সর্বশান্ত করে পথে বসাতে এবং জমিজমা সংক্রান্ত পূর্বশত্রুতার জের ধরে সোমবার দিবাগত মধ্যরাতে একই গ্রামের কিছু দূর্বত্তরা তার কলাবাগান বিনষ্ট করে পালিয়ে যায় ৷

 

এ ব্যাপারে দরিদ্র কৃষক এ প্রতিবেদককে বলেন, আমি গরীব মানুষ পরের জমি বর্গা নিয়ে চাষাবাদ করে সংসার চালায় ৷ আমার অল্পকিছু জমিজমা নিয়ে অনেক আগে প্রতিবেশির সাথে সামান্য বিবাদ ছিলো, কিন্তু তারা আমার এমন সর্বনাশ করবে আমি কখনই ভাবিনি ৷

 

তিনি তার অভিযোগ তুলে ধরে আরও বলেন, আমি অন্যদিনের মত সোমবার দিবাগত রাতে নিজের ঘরে ঘুমিয়ে ছিলাম, হঠাৎ আমার গেটে উচ্চস্বরে ডাকাডাকিতে আমার ঘুম ভেঙ্গে গেলে শুনতে পাই চিৎকার সুরে কারা যেনো আমার নাম ধরে গেটের বাইরে আসতে বলছে ৷ আমি গেট খুলে দেখি আমার গ্রামের মৃত তাহাজ মন্ডলের ছেলে আলারদ্দি (৪০), মৃত মসলেমের ছেলে মুকুল (৩৫), শরিফুলের ছেলে আশিক (১৮) এবং তক্কেল মন্ডলের দুই ছেলে সোহাগ (২৩) ও সজিব (২০) দেশীয় অস্ত্র রামদা হাতে রাস্তার উপর দাঁড়িয়ে আছে ৷ আমাকে গেটে বেরোতে দেখে তারা গালিগালাজ শেষে রামদা উচিয়ে বলে এই রামদা দিয়ে তোর কলাবাগান কুপিয়ে এলাম এরপরে তোকে কুপাবো ৷ ভয় পেয়ে আমি গেট বন্ধ করে দিলে তারা চলে যায় ৷ আমি ভোর রাত্রে কলাবাগানে গিয়ে দেখি আমার সব গাছ তারা কেটে আমাকে সর্বশান্ত করে দিয়েছে ৷ আমার এত বড় ক্ষতি যারা করলো আমি সেই সন্ত্রাসীদের শাস্তি চাই ৷

 

এ ব্যাপারে মনোহরদিয়া ইউপি চেয়ারম্যান জহিরুল ইসলাম জহুর এর মুঠোফোনে ফোন করলে তিনি জানান, সংবাদটি শুনে মঙ্গলবার সকালে আমি সরেজমিনে গিয়ে দেখেছি ৷ কে বা কারা এটা করেছে এ বিষয়ে কোন তথ্য জানতে পারিনাই ৷

 

এ বিষয়ে ইবি থানার অফিসার ইনচার্জ রতন শেখের মুঠোফোনে জানতে চাইলে তিনি ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, মঙ্গলবার বিকেলে থানায় উপস্থিত হয়ে শফিউদ্দিন অপরাধীদের নামে অভিযোগ দায়ের করেছে ৷ অপরাধী যারাই হোক খুব দ্রুত তাদের ধরে আইনের আওতায় আনা হবে ৷