৯ই ডিসেম্বর, ২০১৯ ইং | ২৫শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ | দুপুর ২:৪২

চাপড়া ইউনিয়নের কৃষকের স্বপ্ন এখন পানির নিচে

 

কুমারখালী উপজেলার কৃষকের স্বপ্ন এখন পানির নিচে। কুষ্টিয়াতে বৃষ্টির কারণে হাঁটু পানির নিচে জমির ফসল। এতে ফসলি ধান, পিয়াজ, রসুন ও অন্যান্য ফসলের চাষ করে ক্রমাগত লোকসান গুনছেন কৃষকরা। ধান চাষ উৎপাদনের এলাকা বলে প্রসিদ্ধ কুষ্টিয়া জেলার কুমারখালী উপজেলার ছেঁউড়িয়া মোল্লাপাড়া, চাপড়া, বিশ্বাসপাড়া, মন্ডলপাড়া, জয়নাবাদ, কারিকরপাড়া, জয়নাবাদ কলোনী, লাহিনী ও গোসাঁঈডাঙ্গা গ্রাম ধান চাষে অন্যতম। কুমারখালী কৃষি অফিস সূত্রে জানান গেছে, চলতি মৌসুমে কুমারখালী উপজেলায় ১০৮ হেক্টর জমিতে ধানের আবাদ হয়েছে।

 

 

হঠাৎ বৃষ্টির কারণে অনেক জমির ধান আক্রান্ত হয়েছে। ছেঁউড়িয়া মোল্লাপাড়া গ্রামের চাষি সাইফুল ইসলাম জানান, আমি ৩ বিঘা জমিতে ধান চাষ করেছি, তার মধ্যে ২বিঘার ধান সহ অন্যান্য ক্ষেত বৃষ্টির পানিতে ডুবে গেছে। গত সোমবার ভোর থেকে শুরু করে বৃহস্পতিবার দুপুর পর্যন্ত দফায় দফায় বৃষ্টিপাতের কারণে অধিকাংশ ধান ক্ষেত, পিয়াজ, রসুন, মসুর ও অন্যান্য ফসলের ক্ষেতে হাঁটুপানি জমেছে, ওইসব ফসল থেকে বৃষ্টির পানি সরতে বেশ কয়েকদিন সময় লাগবে।

 

আর এরই মধ্যে পচে যাবে অধিকাংশ ফসল। এর মধ্যে আবার আকাশে মেঘ করেছে, ঝিরি ঝিরি বৃষ্টি পড়ছে ফলে এবার ফসলের পুরোপুরি নষ্ট হওয়ার পথে। কৃষকেরা জানান, পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা না থাকায় এ ক্ষতি মারাত্মক আকার ধারণ করছে। কৃষকদের আর্থিক ক্ষতি বেশ বেড়ে যাবে বলে তারা মনে করেন।

 

এব্যাপারে কুমারখালী উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা নিকট কৃষকেরা দাবি জানান, টানা বৃষ্টিতে ধানসহ, পিঁয়াজ, রবি মৌসুমে সব ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। কৃষকের এই ক্ষতি পূরণের জন্য উপজেলা কৃষি কর্মকর্তরা যদি একটু সু-নজর দিতেন তাহলে কৃষকের কষ্ট কিছুটা হলেও কমতো বলে কৃষকেরা ধারণা করেছেন। তবে আবাদি ফসল আক্রান্ত হয়েছে। কিন্তু ক্ষতির পরিমান এখনও বলা যাচ্ছে না।