২৫শে জানুয়ারি, ২০২০ ইং | ১১ই মাঘ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ | দুপুর ১:১৭

মেয়েটি স্বপ্নেও ভাবেনি যুবকটি বিয়ে করার পর এ কাজ করবে

ঢাকা: সোশ্যাল মিডিয়া তোলপাড়, পতিতালয়ের এই মেয়েটিকে বিয়ে করল এক যুবক, পুরো ঘটনা জানলে চমকে যাবেন। ভালোবাসা হল এমনই একটা বিষয় যা কখনও জাতি, ধর্ম এবং বর্ণের বেড়াজালের মধ্যে যে কখনও আটকে থাকে না তার প্রমাণ আমরা আগেও অনেকবার পেয়েছি।

অনেকেই এমন আছেন যারা নিজের থেকে আলাদা অর্থাৎ অন্য কোনও সম্প্রদায়ের মানুষদের নিজের আরও কাছে টেনে নিয়েছেন অথবা অনেক বাধা-বিপত্তি পেরিয়ে গিয়েও অন্য সম্প্রদায়ের মানুষকে বিয়ে করেছেন, আমরা সবাই কিন্তু সেটা জানি।

তবে এসব সমস্ত কিছুকে ছাপিয়ে গিয়ে মানুষের সামনে এবার সম্পূর্ণ অন্য এক কাহিনী উঠে এসেছে।

ভারতের মধ্য প্রদেশের এক বাসিন্দা যার নাম “আকাশ”, তিনি একজন পতিতাকে বিয়ে করেছেন, এবং শুধু বিয়ে করেছেন বললে ভুল হবে, এই বিয়ে করার সাথে সাথেই সেখানে প্রচলিত একটি বাজে প্রথার ও বিরোধীতা করলেন তিনি।

মধ্যপ্রদেশে একটি নিম্ন সম্প্রদায়ের জাতির মধ্যে এখনও এই নিয়ম প্রচলিত আছে যে, বাড়ির কন্যাসন্তান একটু বড় হয়ে যাওয়ার পরেই তাদের বাড়ির বা-মায়েরা তাদের পতিতালয়ে পাঠিয়ে দেন, এবং এর ফলেই বহু মেয়ের পড়াশুনা করার ইচ্ছেটাই শেষ হয়ে যায়, এবং তাদের স্বাধীনভাবে জীবনযাপন করার ইচ্ছেটাও চলে যায়।

আর ঠিক এররকমই একটা প্রথা বহুকাল ধরেই চলে আসছে। মোদি সরকার ক্ষমতায় আসার পর এই প্রথার তীব্র বিরোধিতা করেছেন এবং এর জন্য তিনি অনেক আইন চালু করেছিলেন, তাও এই সমস্যার কোনও রকম সমাধান করা যায়নি।

আর প্রায় অনেক দিন ধরেই এনজিও ক্যাম্পের মাধ্যমে এই সমস্যা সমাধানের চেষ্টা করছেন আকাশ। সেই সূত্রেই তার ভারতী নামের একটি মেয়ের সাথে পতিতালয়ে পরিচয় হয়। জানা গেছে ভারতীর মা তাকে ১৬ বছর বয়সেই পড়াশুনা ছাড়িয়ে তাঁকে পতিতালয়ে পাঠিয়ে দিয়েছেন। তাই সম্প্রতি এই ভারতীকেই আকাশ বিয়ে করেছেন। সূত্র: ভারতীয় গণমাধ্যম