১২ই নভেম্বর, ২০১৯ ইং | ২৮শে কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ | সকাল ৭:০২

মাত্র ৫ দিনেই তছনছ পুলিশের এসআই কোহিনুরের সংসার!

গত কয়েকদিনে রাজধানীতে মহামারির রূপ নিয়েছে ডেঙ্গু। ছোট শিশু থেকে বৃদ্ধ অনেকেই আক্রান্ত হচ্ছেন ডেঙ্গু জ্বরে। সবার মধ্যে আতঙ্ক ডেঙ্গু নিয়ে।

ইতিপূর্বে দেশে বিভিন্ন সময় ডেঙ্গু রোগ দেখা গেলেও এবারের মতো ভয়াবহ ছিল না। এবার যেমন আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে তেমনি মৃত্যুর সংখ্যাও বাড়ছে। এবার সে খাতায় নাম লিখিয়েছেন পুলিশের বিশেষ শাখার (এসবি) এসআই কোহিনুর আক্তার।

২০ মাস বয়সি মেয়ে জাকিয়া জাফরিন আর স্বামী শেখ জহির রায়হানকে নিয়ে কোহিনুরের ছিল সাজানো-গোছানো ছোট্ট সংসার। কিন্তু ডেঙ্গুর মরণ কামড়ে মাত্র পাঁচ দিনের ব্যবধানে তছনছ হয়ে গেল কোহিনুরের এই সাজানো সংসার। ডেঙ্গু জ্বর কেড়ে নিয়েছে কোহিনুরের জীবন।

কোহিনুরের স্বামী শেখ জহির রায়হান বলেন, গত শুক্রবার সকাল থেকে তার স্ত্রীর জ্বর ছিল। ওই দিন বিকেলে কোহিনুরকে চিকিৎসকের কাছে নিয়ে যান তিনি। চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী পরদিন শনিবার পপুলার ডায়াগনস্টিক সেন্টার হাসপাতালে কোহিনুরের রক্ত পরীক্ষাসহ অন্য পরীক্ষাগুলো করানো হয়। পরীক্ষার ফলাফল দেখে জানতে পারেন, কোহিনুরের ডেঙ্গু হয়েছে। পরে চিকিৎসকের পরামর্শে ওষুধ নিয়ে বাড়ি ফেরেন তারা। গত রবিবার সকালে রাজারবাগ পুলিশ লাইনস হাসপাতালে কোহিনুরকে ভর্তি করানো হয়।

শেখ জহির রায়হান বলেন, রাজারবাগ হাসপাতালে নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্র (আইসিইউ) ছিল না। তাই সেখানকার চিকিৎসকেরা কোহিনুরকে লালমাটিয়ায় সিটি হাসপাতালে পাঠিয়ে দেন। গত মঙ্গলবার সকালে সিটি হাসপাতালে নেয়া হয় কোহিনুরকে। সেদিনই তার অবস্থার অবনতি হয়। পরে মঙ্গলবার দিবাগত রাত দেড়টার দিকে কোহিনুর মারা যান।

জহির রায়হান বলেন, ‘আমাদের ১ বছর ৮ মাস বয়সি একটা মেয়ে আছে। ২৬ জুলাই জ্বর হলো, ৩১ জুলাই কোহিনুর মারা গেল। পাঁচ দিনেই সব শেষ।’

জানা গেছে, স্পেশাল ব্রাঞ্চের এসআই কোহিনুর আক্তার রাজধানীর মধ্য বাড্ডায় পরিবারের সঙ্গে বসবাস করতেন। তার গ্রামের বাড়ি টাঙ্গাইলের ভূঞাপুর উপজেলার অর্জুনা গ্রামে। তার স্বামী শেখ জহির রায়হান একজন ব্যবসায়ী।

বুধবার সকাল সাড়ে নয়টায় রাজারবাগে তার জানাজা সম্পন্ন হয়েছে। কোহিনুরের মরদেহ গ্রামের বাড়িতে দাফন করা হবে।