২৩শে এপ্রিল, ২০১৮ ইং | ১০ই বৈশাখ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | বিকাল ৩:৩০

হেমন্ত যেন নবান্ন নিয়ে এসেছে

হুমায়ুন কবির: হেমন্তকাল জেন কৃষকের একচিল্টি মুখের হাসি। কষ্টার্জিত কৃষকের উৎপাদিত ফসল আহরণের এক উত্তম সময় হেমন্তকাল। শিশির ভেজা সকালই জানান দেয় কৃষকের মাঠভরা যেন সোনালী ফসলের ধান। ব্যস্ততার কমতি নাই কৃষক কৃষানীর। কাস্তে হাতে কৃষক যায় মাঠে ধান কাটতে কৃষানীর যেন দমফেলার সময় নাই রান্নাবান্না আর কাজের মাঝে। আবহমানকাল থেকে গ্রামীণ অহরহ চোখে পরা দৃশ্য হেমন্তকালেই ধরা দেয় ধান কাটার মৌসুমে। প্রতিটা ঘরেই যেন নবান্নের উৎস নেমে আসে। কৃষকের মনের খোরক যোগাতে আগেকার দিনের সেই জারি শারি গানের আসর চোখে না পরলেও কষ্টের হাড়ভাঙ্গা পরিশ্রমের মাঝে ভেসে আসে ভাওয়াইয়া গানের সুর। দা, হাসুয়া নিয়ে তৈরী হয় খেজুরের গাছ তৈরী করতে। কোয়াশা ঢাকা সকালটাই যেন জানান দেয় মিস্টি খেজুরের রসের দাওয়া। পারা মহল্লায় ধুম পড়ে যায় নবান্ন উৎসবের ছোটদের আনন্দ কোলাহল। অতিথি পাখিদের আনাগোনা যেন খাল বিল নদী নালায় কানাবগি আর সাদা বগের খাদ্য আহরণে বিলের ধারে ওরা যেন বসে আছে ঐকাক ডাকা ভোর হতে। শুকিয়ে যাওয়া খালের মাঝে একটি পুটি মাছের অপেক্ষায় রয়েছে কানাবগি। গ্রামীন জনপদের এমন দৃশ্য যেন হেমন্তরই শোভা পায়।

ছবিতে হেমন্তের পরন্ত বিকালে কৃষকের মাঠ থেকে ধান কেটে আনার দৃশ্য

Leave a Reply

Your email address will not be published.