১৭ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং | ৬ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ | রাত ৩:১৬

কমছে না পানি, দুশ্চিন্তায় তাহিরপুরের ৪০ হাজার কৃষক

নিউজ ডেস্কঃ কমছে না হাওরের পানি, দুশ্চিন্তায় তাহিরপুরের ৪০ হাজার কৃষক। গেল বছর এ সময়ে ধুম পড়েছে হাওরে হাওরে বোর রোপন। এবার কোনো হাওরে এখনো চোখে পড়ছে না বোর ধান রোপন।

 

সুনামগঞ্জ জেলার হাওর উপজেলা তাহিরপুরের বিভিন্ন বোর ফসলি হাওরে পানি এখনো কমছে না। প্রতি বছর ডিসেম্বর মাসের মাঝামাঝি থেকেই পুরোদমে চলে বোর ধান রোপনের মৌসুম কিন্তু চলতি বছর হাওরে পানি না কমায় ডিসেম্বর মাসের শেষ দিকে এসেও কৃষক জমিতে ধান রোপন করতে পারছেন না। জানুয়ারী মাসের প্রথম দিক থেকে শুরু হবে কিনা তা বলা যাচ্ছে না সহসাই।

 

হাওরে হাওরে পানি না কমার এ চিত্র দেখে হাওর পারের হাজার হাজার কৃষক বোর ধান রোপন নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করছেন। গেল বছর অসময়ে অকাল বন্যায় হাওরের বাঁধ ভেঙ্গে ফসল হারিয়ে কৃষক অনেকটা সর্বশান্ত। চলতি বছর বোর ধান রোপন মৌসুমে হাওরে পানি না কমায় আবারো নতুন করে কৃষকদের মনে উৎকন্ঠা দেখা দিচ্ছে। কষ্ট করে বীজতলা তৈরী করলেও জমি রোপন করতে পারেবনে কিনা সেটাও ভাবনায় রয়েছে কৃষকদের।

 

তাহিরপুর উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়, শনি, মাটিয়ান, আঙ্গারউলি, ফানা, কেচুরিয়া, মহালিয়া, শমসা হাওরসহ ছোট বড় ২৩টি বোর ফসলি হাওর রয়েছে এ উপজেলায়। ২৩টি ছোট বড় হাওরে বোর ফসলি জমি রয়েছে ১৮ হাজার হেক্টর। ১৮ হাজার হেক্টর জমিতে ৪০ হাজারে অধিক কৃষক বোর ধান চাষাবাদ করেন।

 

গত বছর হাওরে ঠিকাদার, পিআইসি ও পাউবো কর্মকর্তাদের দুর্নীতির কারণে অসময়ে বাঁধ ভেঙ্গে তলিয়ে যায় উপজেলার সবকটি বোর ফসলি হাওরের ধান। চলতি বছর বোর রোপনের উপর্যুক্ত মৌসুমে এখনো চাষাবদের জমি পানিতে নিমজ্জিত থাকায় নতুন করে আবার দুশ্চিন্তায় পড়ছেন হাওরপারের কৃষক।

 

শনি হাওর পার দক্ষিণশ্রীপুর ইউনিয়নের রামজীবনপুর গ্রামের কৃষক কয়েছ মিয়া বলেন, পৌষ মাসের মাঝামাঝি সময়ে শনির হাওরের অর্ধেক জমি রোপন শেষ হয়ে যায়। এবার হাওরে পানি না কমায় কৃষক এখনো জমি রোপন শুরু করতে পারছেন না।

 

মাটিয়ান হাওর পার রতনশ্রী গ্রামের কৃষক এনামুল কবির বলেন, আগামী ১০ দিনের মধ্যে হাওরের পানি না কমলে পরবর্তীতে আর জমি রোপন করেও কোনো লাভ হবেন।

 

সরজমিন শনি হাওর, মাটিয়ান হাওর, বলদা হাওর এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, সব হাওরে একই অবস্থা। ধীর গতিতে কমছে হাওরের পানি। এভাবে ধীর গতিতে পানি কমলে হাওরের বোর ধান রোপন শেষ করতে অনেক দিন লেগে যাবে। যথা সময়ে জমি রোপন না করতে পারলে অসময়ে জমি রোপন করে কোনো লাভ নেই বলে এলাকার কৃষকদের অভিমত।

 

মাটিয়ান হাওরপার দক্ষিণ বড়দল ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আজর আলী জানান, হাওরের পানি এখনো না কমায় কৃষকদের মনে নতুন করে উৎকন্টা দেখা দিয়েছে। জমি না করতে পারলে আগামী দিন কি খাবেন এ নিয়ে কৃষকদের দুশ্চিন্তার শেষ নেই।

 

তাহিরপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আব্দুছ ছালাম বলেন, হাওরের পানি কমছে না, কমলেও তা খুব ধীর গতিতে কমছে। চলতি বছর ১৫ দিন পিছিয়ে পরবে বোর ধান রোপন মৌসুম।

 

তাহিরপুর উপজেলা পরিষদ ভাইস চেয়ারম্যান ফেরদৌস আলম আখঞ্জি বলেন, উপজেলার অভ্যন্তরে হাওরপারে যে গ্রামেই যাই সকল কৃষকদের বক্তব্য একটাই পানিতো কমছে না, না কমলে কেমনে কি করমু।