১২ই ডিসেম্বর, ২০১৮ ইং | ২৯শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | রাত ২:৫৮

শীতের সাজ ও মেকআপ

নিউজ ডেস্কঃ নারীরা কমবেশি সবাই মেকআপ করেন। শীতে মেকআপ সহজে নষ্ট হয় না, তাই এই সময়টা উপযোগী। উজ্জ্বল রঙের নারীদের জন্য তো আরো সুখবর। পোশাকের সাথে মানানসই মেকআপ ছাড়া সাজলে আপনাকে এলোমেলো দেখাবে তাই শীতে আপনার সাজ কেমন হবে, সেটি যত্নের সাথে খেয়াল রাখুন।
তাই সাজগোজ ও মেকআপের ক্ষেত্রে যে বিষয়গুলো খেয়াল রাখবেন –

 

শীতে বাইরের আবহাওয়া থাকে রুক্ষ্য আর সূর্যের তাপ ক্ষতি করতে পারে আপনার ত্বকে। সানস্ক্রিন ব্যবহার করুন এটি আপনার ত্বকে ময়েশ্চারাইজারের কাজও করবে।
মেকআপ শুরুর আগে ত্বকে লাগিয়ে নিন ময়েশ্চারাইজার। শুষ্ক ত্বকে অয়েল বেসড ময়েশ্চারাইজার, তৈলাক্ত ত্বকে অয়েল ফ্রি ময়েশ্চারাইজার ও কম্বিনেশন ত্বকের টি জোনে অয়েল ফ্রি এবং বাকি অংশে অয়েল বেসড ময়েশ্চারাইজার লাগান।
বর্তমানে নাম করা মেকআপ ব্রান্ডগুলো ময়েশ্চারাইজার ও ফাউন্ডেশনের সংমিশ্রণে তৈরি করেছে BB ক্রিম। এই এক ক্রিম শুধু ফাউন্ডেশন ই নয় কাজ করে ময়েশ্চারাইজারেরও। হালকা মেকআপ করতে চাইলে ফাউন্ডেশনের বদলে বেছে নিন বিবি ক্রিম।
শীতে বেছে নিন একটু ভারী ধরনের ক্রিম কমপ্যাক্ট পাউডার, যাতে অয়েল কন্টেন্ট বেশি থাকে। এটি ত্বকের আর্দ্রতা বজায় রাখবে, অতিরিক্ত শুষ্ক করবে না। ঠোঁটের সাজ: দামি সুন্দর লিপস্টিক পরলেন অথচ ঠোঁট শুষ্ক ও ফাটা। সে ক্ষেত্রে ভালো দেখাবে না একদমই। লিপস্টিক দেয়ার আগে ঠোঁটে ভালো মানের লিপবাম লাগান। লিপস্টিকের বদলে ব্যবহার করতে পারেন টিন্টেড লিপবাম আর লিপগ্লস।

শীতে ম্যাট ফিনিশের বদলে শাইন ফিনিশ এমন ফাউন্ডেশন বেশি কার্যকর। অনেকের ক্ষেত্রেই শীতে গায়ের রঙ ১-২ টোন উজ্জ্বল দেখায়। ফলে সামারে ব্যবহৃত ফাউন্ডেশনের শেড ম্যাচ করে না এবং ডার্ক দেখায়। তাই শীতে স্কিন টোনের সঙ্গে শেড মিলিয়ে নেয়া জরুরি। ডার্ক সার্কেল, ব্রণের দাগ ও ডার্ক স্পট ঢাকতে বেছে নিন লিকুইড বা ক্রিম কন্সিলার।
ব্লাশ শীতের মেকআপের প্রধান আইটেম। শীতের ফ্যাকাশে ত্বককে রঙিন করতে বেছে নিন ব্লাশ। যাদের রঙ ফর্সা ও আন্ডারটোন পিংক, তারা বেছে নিন গোলাপি বা কোরাল শেড। হলুদ আন্ডারটোন ও চাপা রঙ হলে পিচ, টেরাকোটা শেডগুলো বেশি মানাবে। পাউডার ব্লাশ-অনের বদলে বেছে নিন ক্রিম।

 

শীতকে বলা হয়ে থাকে ফ্যাশনের ঋতু কারণ এসময় ঘাম ও তৈলাক্ততা কম হওয়ার জন্য সাজগোজ করে নিজের লুক ইচ্ছে মত বেশী সময় ধরে পরিবর্তন করা যায়। তবে সৌন্দর্য্য প্রকাশে আর দেরী কেন!