১৯শে অক্টোবর, ২০১৮ ইং | ৪ঠা কার্তিক, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | সকাল ১১:৩৮

কুষ্টিয়ার ‘ডিজিটাল মেলা’য় কম্পিউটার স্পেস ইন্সটিটিউট দর্শনার্থীদের ভিড়

কুষ্টিয়ায় শুরু হয়েছে তিনদিন ব্যাপী “ডিজিটাল উদ্ভাবনী মেলা।

বৃহস্পতিবার বিকেলে কুষ্টিয়া কালেক্টরেট চত্বরে এ মেলার উদ্বোধন করেন কুষ্টিয়ার জেলা প্রশাসক মো. জহির রায়হান।

উদ্বোধনের পর জেলা প্রশাসক মেলার বিভিন্ন স্টল ঘুরে ঘুরে দেখেন।

মেলায় অংশ নেওয়া প্যাভেলিয়ান ৫ এ ৭১নং ষ্টলে কম্পিউটার স্পেস ইন্সটিটিউট এ ছিলো দর্শনার্থীদের ভিড়।

 

 

ভিড় ঠেলে সামনে গিয়ে জানতে পারলাম ভিড়ের কারণ। সেখানে আগত দর্শনার্থীদের জন্য কম্পিউটার স্পেস ইন্সটিটিউট র্যাফেল ড্র চালু করেছে।

প্রতিদিন বিনামুল্যের এই কুপন পুরনের মাধ্যমে ভাগ্যবান দুজনকে বিনামুল্যে কম্পিউটার প্রশিক্ষণ প্রদান করবে প্রতিষ্ঠানটি।

তিনদিনব্যাপী মেলায় ৬জন ভাগ্যবানকে প্রশিক্ষন প্রদান করতে সেই প্রতিষ্ঠান।

 

 

কথা হয় প্রতিষ্ঠানের চেয়ারম্যান জাহিদুল ইসলাম রনির সাথে। তিনি জানান, ২০১১ সালের দিকে কুষ্টিয়ায় কম্পিউটার শিক্ষা গ্রহণ করি, নিজের জীবন নিজে গড়ি’’ – এ উদ্দেশ্যকে সামনে রেখে আমরা প্রতিষ্ঠানটি যাত্রা শুরু করি।
আমাদের দেশে অন্যান্য প্রতিষ্ঠান সমূহের মধ্যে কম্পিউটার স্পেস ইন্সটিটিউট দেশের কারিগরি শিক্ষা বিস্তারের ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা পালন করছে। বর্তমান যুগ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির যুগ। এ শতাব্দীতে বিজ্ঞান ও তথ্য প্রযুক্তির ক্ষেত্রে যে উন্নতি সাধিত হয়েছে তা সমগ্র বিশ্বকে একটি গ্লোবাল ভিলেজ-এ পরিণত করেছে। আজ বিশ্ব প্রতিযোগিতায় টিকে থেকে অর্থনৈতিক যুদ্ধে জয়ী হতে হলে আমাদের তরুনেদের কারিগরি শিক্ষায় শিক্ষিত করে দক্ষ মানব সম্পদে পরিণত করতে হবে। যুগোপযোগী শিক্ষার মাধ্যমে মেধা ও যোগ্যতাকে কাজে লাগিয়ে বিশ্ব বাজারে নিজেকে স্থান করে নিতে হবে। যুগের দাবী পূরণের মহতি লক্ষকে সামনে রেখে সরকারি অনুমোদনে কম্পিউটার স্পেস ইন্সটিটিউট জেলা শহর কুষ্টিয়াতে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে।

 

তিনি জানান, মাননীয় প্রধান মন্ত্রীর স্বপ্নপূরনে ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়তে (বেকারত্ব দুরীকরন কর্মশালা) কম্পিউটার স্পেস ইন্সটিটিউট এযাবত দেড় হাজারেরও বেশি আউটসোর্সিং এর মাধ্যমে স্বচ্ছল জীবন যাপনে সহায়তা করতে সক্ষম হয়েছি।শুধু তাই নয়, ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়তে ডিজিটাল কর্মশালা ভিশন ২০২৫ এ আরও ১০০০ জনকে বিভিন্ন মার্কেটপ্লেসে কর্মদানের মাধ্যমে সাবলম্বী করনে ও বেকারত্ব দূরীকরনের উদ্যোগ হাতে নিয়েছে।

 

এই ডিজিটিাল উদ্ভাবনী মেলায় তরুন সমাজরা যেন আরও বেশি আসতে পারে এবং অনুপ্রাণিত হয় এজন্য আমরা মেলার শুরু থেকেই কুপনের মাধ্যমে প্রতিদিন তিনজনকে পুরস্কারস্বরুপ বিনামুল্যে কম্পিউটারের বিভিন্ন প্রশিক্ষণ প্রদান করবো।এটি মুলত মেলায় দর্শনার্থীদের আগ্রহ বাড়ানোর জন্য। যাতে করে তারা প্রশিক্ষখ শিখে আত্মকর্মসংস্থানের সৃষ্টি করতে পারি। তিন দিনের এই মেলায় ৬জনকে প্রশিক্ষণ প্রদান করতে ৬০ হাজার টাকা ব্যায় হবে বলৌ জানান প্রতিষ্ঠানের প্রধান এই কর্মকর্তা।

মেলায় মোট ৮৮ টি স্টলে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান অংশ গ্রহণ করছে।