১৬ই আগস্ট, ২০১৮ ইং | ১লা ভাদ্র, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | বিকাল ৩:৪১

শুভ জন্মদিন সাংবাদিক এস এম জামাল

নিজস্ব প্রতিবেদক : দেশের শীর্ষস্থানীয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল নিউজ বাংলাদেশ.কম এর কুষ্টিয়া প্রতিনিধি এস এম জামালের জন্মদিন ১৪ ফ্রেবুয়ারী। শুভ জন্মদিন এস এম জামাল।

 

তার বাবা ছিলেন একজন কাঠমিস্ত্রি।১৯৮৭ সালের এই দিনে তিনি কুষ্টিয়ার মিরপুর উপজেলার মশান গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। দাদাবাড়ি ভেড়ামারা উপজেলার বামনপাড়া এলাকাতে।

 

সাংবাদিকতার মানুষ এস এম জামাল সাংবাদিকতার পাশাপাশি মৌবন ‘প্রিন্টিং এন্ড প্যাকেজিং’ এর প্রতিষ্ঠানে কর্মরত রয়েছেন।এছাড়াও বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ড ও সামাজিক-সাংগঠনিক কার্যক্রমের সঙ্গে জড়িত এস এম জামাল।

২০০৩ সালে বৃহত্তর কুষ্টিয়া থেকে প্রথম প্রকাশিত দৈনিক পত্রিকা বাংলাদেশ বার্তা পত্রিকার মাধ্যমে এস এম জামালের লেখালেখি

শুরু।

এরপর ষ্টাফ রিপোর্টার হিসেবে কাজ করেছেন দৈনিক সময়ের কাগজ। পরবর্তীতে আবার দৈনিক বাংলাদেশ বার্তা পত্রিকায় সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন। মাঝে খবর সত্যখবর পত্রিকার বার্তা সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। এছাড়াও জাতীয় দৈনিক আজকালের খবর, ইংরেজী দৈনিক ট্রাইবুন্যাল পত্রিকাসহ বিভিন্ন অনলাইন পত্রিকার জেলা প্রতিনিধিত্ব করেন তিনি।

 

কুষ্টিয়া সরকারি কলেজে অধ্যায়নকালীন এই সাংবাদিককে ইতিমধ্যেই অনেকেই চারণ সাংবাদিক হিসেবে আখ্যায়িত করে থাকে।

এস এম জামালের বাবা মো: কিরামত আলী এলাকার স্বনামধন্য ফার্ণিচার মিস্ত্রি হিসেবেখ্যাত।
মা আয়েশা খাতুন গৃহিনী। তিন ভাই-বোনের মধ্যে সবার বড় এস এম জামাল।

 

ছাত্রবস্থায় সাংবাদিকতা শখ তাকে পেয়ে বসে।ওষধের ব্যবসার পাশাপাশি চলছিলো সাংবাদিকতা। পরবর্তীতে সাংবাদিকতাকেই পেশা হিসেবে বেছে নিয়েছে তরুন এই সাংবাদিক।

 

সাংবাদিক এস এম জামাল জানান, তার প্রিয় রঙ লাল সবুজ। খেতে ভালবাসেন দেশীয় যেকোনো খাবার। প্রিয় ফল আম,পেয়ারা। প্রিয় ফুল গোলাপ। পছন্দের পোশাক গ্যাবাডিন প্যান্ট-শার্ট ও জিন্স-পাঞ্জাবী। প্রিয় লেখক হুমায়ুন আহমেদ, রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর। বসন্তকাল তার ভীষণ ভালো লাগে। না শীত না গরম তার প্রিয় মুহুর্ত্ব। বই পড়া তার একটি বড় অভ্যাস। অবসরের বেশিরভাগ সময়ই কাটে বই পড়ে।

 

গান শুনতে খুব পছন্দ করেন এস এম জামাল। পছন্দের শিল্পী হেমন্ত মুখোপাধ্যায়, কুমার শানু, আসিফ, ফজলুর রহমান বাবু। সিনেমারপ্রেমী এই সাংবাদিক এখনো বন্ধুস্বজনদের সাথে নিয়ে সিনেমা হলে গিয়ে সিনেমা উপভোগ করেন।

 

ঘুরে বেড়াতে প্রচণ্ড ভালোবাসেন। পেশাগত কাজে
তাকে ব্যস্ততা থাকতে হয়। ভীষণ উপভোগ করেন তিনি।

 

জন্মদিনের পরিকল্পনা সম্পর্কে জানতে চাইলে এস এম জামাল বলেন, এখন সাধারণত জন্মদিনে পারিবারিকভাবেই কাটানো হয়।তবে এবারের জন্মদিন উপলক্ষ্যে এতিমাখানায় বন্ধুস্বজনদের সাথে নিয়ে এতিমদের সাথে উদযাপন করবেন। আর সন্ধ্যায় বন্ধুস্বজন ও শুভাকঙ্খীদের সঙ্গে আড্ডা।

 

ব্যক্তিগত জীবনে এস এম জামাল বিবাহিত এবং এক সন্তানের জনক। স্ত্রী শামীমা জামাল রিংকী ভেড়ামারা মহিলা কলেজ থেকে পড়াশোনা শেষ করেছেন। কণ্যা ‘জান্নাতুল ফেরদৌস জারা’-এর বয়স প্রায় ৬মাস।

 

সবসময় ইতিবাচক মানসিকতা পোষণ করেন এই সাংবাদিক। অল্প বয়সে এতো এতো সাফল্যের পেছনের সূত্র মনে করেন ‘ইতিবাচক থাকা’কে। নিজ গ্রাম, উপজেলা, জেলা তথা দেশকে নিয়ে প্রচণ্ড আশাবাদী তিনি। সমৃদ্ধ এবং উন্নত এক দুর্নীতিমুক্ত বাংলাদেশের স্বপ্ন দেখেন এস এম জামাল।